সংরক্ষণাগার

বৃষ্টির কারণে জামালপুরে আবারও পানি বাড়তে শুরু করেছে
ইসলামপুরজামালপুরজামালপুর সদরনির্বাচিত সংবাদসরিষাবাড়ী

বৃষ্টির কারণে জামালপুরে আবারও পানি বাড়তে শুরু করেছে

সাহিদুর রহমান : জামালপুরে যমুনার ও ব্রহ্মপুত্র নদীর পানি ধীরগতিতে কমতে শুরু করেছিল । তবে রোববার ভারী বর্ষণের কারণে দুপুর থেকে আবারও যমুনার ও ব্রহ্মপুত্র নদীর পানি বাড়তে শুরু করেছে।

বাহাদুরাবাদ ঘাট পয়েন্টে যমুনার পানি ৭সেন্টিমিটার বেড়ে বিপৎসীমার ৯৯ সেন্টিমিটার উপর ও জামালপুর ফেরীঘাট পয়েন্টে ব্রহ্মপুত্রের পানি বেড়ে বিপৎসীমার ২ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

রোববার (১৯ জুলাই) রাত ৯টার দিকে জামালপুর জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ আবু সাঈদ এবং পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) পানি পরিমাপক (গেজ রিডার) আব্দুল মান্নান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এতে জেলার ইসলামপুর,দেওয়ানগঞ্জ,মেলান্দহ,মাদারগঞ্জ,সরিষাবাড়ী, বকশীগঞ্জ ও সদর উপজেলার নতুন নতুন এলাকা বন্যা কবলিত হয়ে পড়েছে । বন্ধ হয়েছে জামালপুর-শেরপুরের সরাসরি সড়ক যোগাযোগ। পানি বৃদ্ধির ফলে বন্যা কবলিত এলাকার ১০ লাখ মানুষের মনে আতংক বিরাজ করছে।

বৃষ্টির কারণে জামালপুরে আবারও পানি বাড়তে শুরু করেছে

বন্যা কবলিত এলাকায় পানি বন্দি মানুষের মাঝে খাদ্য, বিশুদ্ধ খাবার পানি ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদির সংকট দেখা দিয়েছে। দুই দফা বন্যায় প্রায় এক মাস যাবৎ চারণ ভুমি পানিতে তলিয়ে থাকায় গো-খাদ্যের চরম সংকট দেখা দিয়েছে। লাখো কৃষক তাদের গৃহপালিত গবাদি পশুর খাবার নিয়ে চরম বিপাকে পড়েছে ।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণের উপ-পরিচালক মো.আমিনুল ইসলাম বলেন, “বন্যা পানিতে ৮ হাজার ৮২০ হেক্টর জমির ফসল নিমজ্জিত হয়েছে”।

জামালপুরের সিভিল সার্জন ডা. প্রণয় কান্তি দাস বলেন, “বন্যা কবলিত এলাকায় স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করার জন্য ৮০ টি মেডিকেল টিম গঠন করা হয়েছে। তারা বন্যা কবলিত এলাকায় স্বাস্থ্য সেবার জন্য কাজ করে যাচ্ছে”।

জেলার ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা নায়েব আলী বলেন, “এ পর্যন্ত বন্যার্তদের জন্য ১৯ লাখ টাকা, ৪১০ মেট্রিক টন জিআর চাল ও ৪ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার এবং শিশু ও গো-খাদ্য বাবদ ৪ লাখ টাকা বিতরণ করা হয়েছে। এছাড়ও উপ-বরাদ্দকৃত ৩ হাজার ৪০৮ দশমিক ৫৭০ মেট্রিক টন ভিজিএফ চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে”।

এস আর /জামালপুর লাইভ

মন্তব্য করুন