Archives

জামালপুরসরিষাবাড়ী

সরিষাবাড়ীতে হসপিটালের পরিচালকের পিটুনিতে স্ত্রী হাসপাতালে

আবুল হোসেন,নিজস্ব প্রতিনিধি : জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে জনসেবা হসপিটাল প্রাইভেট লিমিটেডে এর ব্যাবস্থাপনা পরিচালকের লোহার পাইপের পিটুনিতে তার স্ত্রী পলি আক্তার (২৫) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন বলে তথ্য পাওয়া গেছে।

শনিবার সকালে উপজেলার আওনা ইউনিয়নের জগন্নাথগঞ্জঘাট জনসেবা হসপিটালের তৃতীয় তলায় এ ঘটনা ঘটেছে।

স্থানীয় ও নির্যাতিত সূত্রে জানা গেছে,সরিষাবাড়ী উপজেলার আওনা ইউনিয়নের জগন্নাথগঞ্জঘাটে ২০১০ সালে জনসেবা হসপিটাল প্রইিভেট লি: নামে ডায়াগনষ্টিক সেন্টার প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলেন স্থানীয় মেন্দারভেড় গ্রামের মৃত আব্দুল হালিমের ছেলে লিয়াকত আলী খান।

তার ২টি স্ত্রী থাকা সত্বেও ২০১৪ সালে প্রতারনামূলকভাবে মেন্দারভেড় গ্রামের মৃত ফজলুল হকের মেয়ে পলি আক্তার কে ২০১৪ সালে ৩য় বিয়ে করেন। বিয়ের কিছু দিন পর বিভিন্ন সময় তার স্ত্রীর নিকট যৌতুক দাবী করে আসছিল। এ নিয়ে দু’জনের মাঝে সময় সময় ঝগড়া বাক বিতন্ডা লেগেই থাকে। এ ধারাবাহিকতায় গতকাল শুক্রবার রাত সাড়ে ১১ টায় লিয়াকত আলী খান তার স্ত্রী পলি আক্তারের নিকট ২ লাখ টাকা যৌতুক দাবী করে। পলি আক্তার যৌতুক এনে দিতে অস্বীকার করলে তার বিরুদ্ধে পরকীয়া ও হাসপাতালের অর্থ আত্মসাতের মিথ্যা অভিযোগ এনে স্বামী লিয়াকত আলী খান তার স্ত্রীকে লোহার চিকন পাইপ দিয়ে এলোপাথাড়ী পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করে গুরুতর আহত করে।

একই ঘটনার জের ধরে  শনিবার সকাল সাড়ে ৭ টার দিকে জনসেবা হসপিটালের ৩য় তলার বাসায় তাদের দু জনের মাঝে কথাকাটাকাটির এক পর্যায়ে লিয়াকত আলী খান তার স্ত্রী কে মারধর শুরু করেন। এ সময় ৩য় তলা থেকে বাচাও বাচাও বলে চিৎকার করে নিচে নেমে এসে ওষুধ ব্যাবসায়ী ময়নালের বাসায় প্রবেশ করলে লিয়াকত আলী খানও পিছে পিছে মারতে যায়।এ ঘটনার পলির কান্নাকাটিতে স্থানীয় লোকজন এগিয়ে এলে ময়নালের বাসার পিছন দিয়ে পালিয়ে যায় লিয়াকত আলী খান। এ নিয়ে স্থানীয় লোকজনের মাঝে ক্ষোভ ও সমালোচনার ঝড় ওঠে।

এ ঘটনার খবর পেয়ে তারাকান্দি পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ মেয়েটিকে উদ্ধার করে পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে নিয়ে আসে। পরে পলি আক্তার কে তার মা লিলি বেওয়ার নিকট হস্তান্তর করেন। পরে পলি আক্তারকে সরিষাবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করানো হয়েছে।

জানতে চাইলে নির্যাতিত নারী পলি আক্তার (২৫)তার স্বামী লিয়াকত আলী খানের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে বলেন,আমার স্বামী আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ এনে আমাকে হত্যার উদ্দেশ্য লোহার রড় দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে অজ্ঞান করার পর ইনজেকশন পুশ করে হত্যার চেষ্টা করে।আমি এর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই ।

অভিযুক্ত স্বামী জনসেবা হসপিটালের পরিচালক লিয়াকত আলী খান তার স্ত্রীকে লোহার চিকন পাইপ দিয়ে মারপিটের ঘটনা সত্যতা স্বীকার করে বলেন, আমার স্ত্রী হাসপাতালের অর্থ বিনা রশিদে টাকা চুরি করে ও অন্য পুরুষের সাথে গোপনে মোবাইল ফোনে পরকীয়া করার বিষয়ে মোবাইলটি উদ্ধার করে নিয়েছি। এ নিয়ে আমাদের দু জনের মাঝে বিরোধে আমাকে আমার হসপিটালের ২য় তলায় তালাবন্ধ করে রাখে।

এ বিষযটি তারাকান্দি পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ মহব্বত কবীরকে মোবাইল ফোনে জানাই। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে আমার স্ত্রী পলিকে পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে নিয়ে যায়।

স্থানীয় ইউপি সদস্য ও মুক্তিযোদ্ধা সন্তান মোবারক হোসেন রাজা বলেন, আমার ওয়ার্ডের পলি আক্তার কে মিথ্যা অভিযোগ এনে লোহার পাইপ দিয়ে পিটিয়ে আহত করেছে।আমি পাষন্ড লিয়াকত আলী খানের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য প্রশাসনের নিকট আশুদুষ্টি কামনা করছি।

এ ব্যাপারে সরিষাবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মমতাজ উদ্দিন আহম্মেদ বলেন,স্বামীর মারপিটে পলি আক্তার(২৫)নামে এক জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এ বিষয়ে সরিষাবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ মুহাম্মদ মাজেদুর রহমান বলেন,স্ত্রীকে মারপিট করার ঘটনায় কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে দোষীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যাবস্থা নেয়া হবে।

বার্তা সম্পাদক
%d bloggers like this: