Archives

জামালপুরসরিষাবাড়ী

যমুনা নদীতে লাফ দেওয়া নিখোঁজ ৩ ব্যাক্তির মরদেহ উদ্ধার

আবুল হোসেন,নিজস্ব প্রতিনিধি : জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে জুয়ার বোর্ডে অজ্ঞাতনামা ডাকাত দলের হামলার ঘটনা ঘটে। ডাকাত দলের হাত থেকে আত্মরক্ষায় ৩ জুয়াড়ী যমুনা নদীতে লাফ দিয়ে নিখোঁজ ব্যাক্তিদের পৃথক পৃথক স্থান থেকে নদীতে ভেসে ওঠা মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

রোববার ( ২৯ নভেম্বর) তারাকান্দি পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের এস আ্ই খালিদ মাসুদ উপজেলা পিংনা ইউনিয়নের যমুনা নদীর বাসুরিয়া চর এলাকায় থেকে দুই মরদেহ এবং টাঙ্গাইল জেলার ভুয়াপুর উপজেলার অর্জুনা ইউনিয়নের গোবিন্দপুর চরে নদীর কিনারা থেকে ভূয়াপুর থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করেছে।

স্থানীয় ও প্রত্যক্ষদর্শী সুত্রে জানা গেছে,সরিষাবাড়ী উপজেলার আওনা ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডের সাবেক ইউপি সদস্য কুমারপাড়া গ্রামের সিদ্দিক তালুকদারের ছেলে লিটন তালুকদার, পোগলদিঘা ইউনিয়নের পাখিমারা গ্রামের আজাহার আলী’র ছেলে খোকন মিয়া ও পিংনা নরপাড়া গ্রামের মৃত বাহেজ আকন্দের ছেলে আব্দুল মান্নান সরকার ও কান্দারপাড়া আলী এর নেতৃত্বে আওনা ও পিংনা ইউনিয়ন এবং তারাকান্দি সহ বিভিন্ন স্থানে বিভিন্ন জেলা’র উপজেলা থেকে মোবাইল ফোনে জুয়াড়ী সরবরাহ করে ভ্রাম্যমান জুয়ার বোর্ড বসিয়ে দীর্ঘদিন ধরে লাখ লাখ টাকার বিভিন্ন ধরনের জুয়া খেলা চালিয়ে আসছিল।

জুয়ার বোর্ডে গত বৃহস্পতিবার (২৬ নভেম্বর) সন্ধা সাড়ে ছয়টার দিকে উপজেলার পিংনা ইউনিয়নের যমুনা নদীর পশ্চিমে বালুর চরে অজ্ঞাতনামা ডাকাত দল হামলা চালায়। এ সময় জুয়ার বোর্ডের মালিক আব্দুল মান্নান কে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে। আব্দুল মান্নান টাঙ্গাইল সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। অপর দুই জুয়ার বোর্ডেও মালিক লিটন তালুকদার ও খোকন মিয়াকে পিটুনি দিলে তারা নদী সাতরিয়ে চলে আসে। ডাকাতদের হামলায় জুয়া বোর্ড মালিক ও খেলোয়াড়দের নিকট থেকে টাকা ও দামী মোবাইল নিয়ে নেয়। জুয়াডীড়ের মধ্যে অনান্যরা নদী সাতরিয়ে চলে আসলেও টাঙ্গাইল জেলার গোপালপুর উপজেলার শাখারিয়া গ্রামের মৃত জমসের আলী খান এর ছেলে হাফিজুর রহমান(৩৭),একই জেলার ভ’য়াপুর উপজেলার নিকলাপাড়া গ্রামের আব্দুল বারেক এর ছেলে ফজল মন্ডল(৩৩) এবং জামালপুর জেলার সরিষাবাড়ী উপজেলার পোগলদিঘা ইউনিয়নের পাখিমারা গ্রামের শামছুল হক এর ছেলে ছানোয়ার হোসেন ছানু (৪০)নিখোঁজ হয়। নিখোঁজ ঘটনায় শুক্রবার (২৭ নভেম্বর) রাতে তারাকান্দি পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে নিখোঁজ তিন ব্যাক্তির পরিবারের পক্ষ থেকে পৃথক পৃথক সাধারন ডায়েরী করা হয়। যার জিডি নং-৬৪১,৬৪৩,৬৪৫। তারিখ-২৭-১১-২০২০ইং। শনিবার (২৮ নভেম্বর) জামালপুর ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারী পরিচালক আব্দুর রাজ্জাক এর নেতৃত্বে ডুবুরী দল বেলা-২টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ২ ঘন্টা চেষ্টা চালিয়ে উদ্ধার করতে ব্যার্থ হন। এ ঘটনায় গত শনিবার দুপুরে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (জামালপুর সদর সার্কেল) শাহ্ শিবলী সাদিক ও সরিষাবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ আবু মোঃ ফজলুল করীম ঘটনা স্থল পরির্দশন করেছেন
নিখোজ ব্যাক্তিকে উদ্ধারে পরিবার পরিজন বিভিন্ন স্থানে মাইকিং করার ফলে গতকাল রোববার দুপুরে টাঙ্গাইল জেলার গোপালপুর উপজেলার শাখারিয়া গ্রামের মৃত জমসের আলী খান এর ছেলে নিখোজ হাফিজুর রহমান(৩৭) এর লাশ ভুয়াপুর উপজেলার অর্জুনা ইউনিয়নের গোবিন্দপুর চরে নদীর কিনারায় জেলারা ভাসমান দেখতে পায়। পরে মোবাইল ফোনের মাধ্যেমে নিখোজ হাফিজুরের লোকজন খবর পেয়ে লাশ সনাক্ত করেন এবং ভুয়াপুর থানা পুলিশকে খবর দিলে এস আই লিটন মিয়া লাশের সুরতহাল করে লাশ থানায় নিয়ে যায়। একই সাথে নিখোজ তিন জনের মধ্যে হাফিজুরের লাশ উদ্ধারের খবর ছডিয়ে পড়লে নিখোজ টাঙ্গাইল জেলার ভ’য়াপুর উপজেলার নিকলাপাড়া গ্রামের আব্দুল বারেক এর ছেলে ফজল মন্ডল(৩৩) এর বোন আসেনা(২৫) ও চাচাত ভাই শফিকুল ইসলাম পবিবার পরিজন নৌকা দিয়ে খোজাখুজি’র এক পর্যায়ে উপজেলা পিংনা ইউনিয়নের যমুনা নদীর বাসুরিয়া চর এলাকায় ফজল মন্ডল ও ছানোয়ার হোসেন ছানু’র দুই মরদেহ দেখতে পেয়ে তারাকান্দি পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে খবর দিলে তদন্ত কেন্দে’র এস আই খালিদ মাসুদ লাশের সুরতহাল করে লাশ উদ্ধার করে ফাডিতে নিয়ে আসে। নিহত ছানু জামালপুর জেলার সরিষাবাড়ী উপজেলার আওনা ইউনিয়নের পাখিমারা গ্রামের শামছুল হক এর ছেলে ছানোয়ার হোসেন ছানু’র পরিবার পরিজন লাশ সনাক্ত করেছে।

তারাকান্দি পুলিশ তদন্ত কেন্দে’র ইনচার্জ মোহাম্মদ তরিকুল ইসলাম জানান, নিখোঁজ ৩ ব্যাক্তির লাশের মধ্যে টাঙ্গাইল জেলার ভ’য়াপুর উপজেলার নিকলাপাড়া গ্রামের আব্দুল বারেক এর ছেলে ফজল মন্ডল ও জামালপুর জেলার সরিষাবাড়ী উপজেলার আওনা ইউনিয়নের পাখিমারা গ্রামের শামছুল হক এর ছেলে ছানোয়ার হোসেন ছানু’র লাশদ্দ্ধার করা হয়েছে। উদ্ধারকৃতদের ময়না তদন্তের জন্য জামালপুর জেনারেল হাসপাতাল মর্গে প্রেরনের প্রস্তুতি চলছে।

তিনি আরও জানান, টাঙ্গাইল জেলার গোপালপুর উপজেলার শাখারিয়া গ্রামের মৃত জমসের আলী খান এর ছেলে নিখোজ হাফিজুর রহমান(৩৭) এর লাশ ভুয়াপুর উপজেলার অর্জুনা ইউনিয়নের গোবিন্দপুর চরে নদীর কিনারা থেকে ভ’যাপুর থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করেছে। লাশটি’র সুরতহাল করে আইগত ব্যাবস্থা গ্রহনের জন্য ভ’যাপুর থানা পুলিশ প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহন করবেন।

এস আর /জামালপুর লাইভ

বার্তা সম্পাদক
%d bloggers like this: