Archives

জামালপুরমেলান্দহ

মেলান্দহে ভাতিজাকে ফাঁসাতে নিজের ঘরে অগ্নিসংযোগ

মেলান্দহে ভাতিজাকে ফাঁসাতে নিজের ঘরে অগ্নিসংযোগের অভিযোগ

মো. শাহ্ জামাল,নিজস্ব প্রতিনিধি : জামালপুরের মেলান্দহে চাচা ভাতিজার মধ্যে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে ভাতিজাকে ফাঁসাতে চাচার রান্না ঘরে আগুন দেয়ার ঘটনাটি চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে ১৩ অক্টোবর সকাল ৯টার দিকে চরপলিশা গ্রামে।

জানা গেছে, চরপলিশা গ্রামের মৃত করিমুজ্জামানের ছেলে চাচা হারুন অর রশিদ ও তোজাম্মেল সরকারের ছেলে ভাতিজা ছামিউল মাষ্টারের মধ্যে দীর্ঘ দিন যাবত জমি নিয়ে বিরোধ চলছে। কিছুদিন আগে চরবানিপাকুরিয়া ইউপি চেয়ারম্যান শাহাদাৎ হোসেন ভূট্রোর কার্যালয়ে সালিশ হয়। সালিশে ভাতিজা চাচার কাছে জমি পাওনার বিষয়টি প্রমানিত হয়।

গ্রাম্য সালিশে চাচা-ভাতিজার মান অক্ষুন্ন রাখতে উভয়ের মধ্যে সমঝোতা করে দেন। সালিশ থেকে চলে এসে চাচা হারুন অর রশিদ ভাতিজাকে জমি দিতে টালবাহনা করে।

এ নিয়ে ১৩অক্টোবর সকালে ভাতিজা ছামিউল মাস্টার গ্রামের লোকজন নিয়ে চাচা হারুন অর রশিদের কাছে যান। এ নিয়ে চাচা-ভাতিজার মধ্যে বাকবিতন্ডা হয়। ইতোমধ্যেই চাচার রান্না ঘরে আগুনের ফুলকি দেখতে পান স্থানীয়রা।

খবর পেয়ে মেলান্দহ ফায়ার সাভির্সের দল আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন। এ বিষয়ে চাচা হারুন অর রশিদ জানান-ছামিউল আমার ঘরে আগুন দিয়েছে।

অপরদিকে ভাতিজা ছামিউল মাস্টার বলেন,আমাকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসাতে নিজের ঘরে নিজেরাই আগুন দিয়েছে। আপনারাও খোঁজ নিয়ে দেখেন প্রকৃত ঘটনা জানতে পারবেন।

চাচা-ভাতিজার স্বগোত্রীয় ও প্রত্যক্ষদর্শী আসলাম সরকার (২৫) জানান-হারুন অর রশিদ ও তার স্ত্রী সেলিনা আক্তার মুক্তা রান্না ঘর থেকে বেরিয়ে আসার পরপরই আগুন দেখতে পাই। এ সময় তারা চিৎকার করে বলছেন ছামিউলদের লোকজন ঘরে আগুন দিয়েছে। এরপর আমিসহ আরো কয়েকজনে আগুন নেভাতে আসি। কিন্তু হারুন আমাদের আগুন নেভাতে দেয়নি। এর রহস্য বুঝলাম না।

মেলান্দহে থানার অফিসার ইনচার্জ রেজাউল ইসলাম খান জানান ,এ সংক্রান্ত অভিযোগের তদন্ত চলছে।

বার্তা সম্পাদক
%d bloggers like this: