Archives

বিশ্ব সংবাদ

পশ্চিমবঙ্গে ভোটের দৌড়!

পশ্চিমবঙ্গে ভোটের দৌড়!

নিউজ ডেস্ক: : সিনেমার দৃশ্য নয়। বাস্তবে ছুটছেন কলকাতার নায়িকা সায়নী ঘোষ। বিহার-ঘেষাঁ পশ্চিমবঙ্গের আসানসোলের বিধানসভার এই প্রার্থীর মতো হাল সবারই। তপ্ত গরমে দিন-রাত নির্বাচনী কাজে গলদঘর্ম প্রার্থীরা। পশ্চিমবঙ্গের শ্বাসরুদ্ধকর ভোটের দৌড়ে কেউ করো পিছনে পড়তে নারাজ।

সায়নীর মতোই ছুটছেন অগ্নিমিত্রা পাল, জুন মালিয়া, শ্রাবন্তী, কাঞ্চন, সায়ন্তনীর মতো হাই-ভল্টেজ প্রার্থীরা। পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচনে তৃণমূল ও বিজেপির পক্ষে কমপক্ষে অর্ধ-শত তারকা প্রার্থীর লড়াই আলাদা উত্তেজনার সৃষ্টি করেছে ভোটের মাঠে-ময়দানে।

খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে রাজ্যময় ছুটতে হচ্ছে ভাঙা পা নিয়ে। কদিন আগে পায়ে আঘাত পেলেও যথেষ্ট বিশ্রামের ফুসরত পাওয়া যায় নি নির্বাচনী প্রচারণার চাপে। প্রায়-প্রতিদিনই ভোটের মুখে রাজ্যে এসে ছুটাছুটি করছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ এবং আরো অনেক ভিভিআইপি নেতা।

ছুটাছুটি আর প্রচারণায় সীমাবদ্ধ নেই নির্বাচনী কার্যক্রম। চলছে অভিযোগ আর পাল্টা-অভিযোগ। অন্য রাজ্যের বহিরাগতরা আর টাকা, অস্ত্র, পেশীশক্তি নির্বাচনকে প্রভাবিত করছে বলে একে অপরের বিরুদ্ধে অভিযোগ করছে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী দলগুলো। নেতাদের ফোনালাফ ফাঁস হচ্ছে। চাঞ্চল্যকর গোপন খবর বের হচ্ছে প্রতিদিনই। সন্ত্রাস, হানাহানি, রক্তপাতের ঘটনাও বাড়ছে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে।

তৃণমূল ও বিজেপির মধ্যে দ্বিমুখী হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হলেও কোথাও কোথাও লড়াই হচ্ছে ত্রিমুখী। বাম-কংগ্রেসের সংযুক্ত মোর্চার প্রার্থীরা কোনো কোনো আসনে যথেষ্ট এগিয়ে এসেছেন। ফলে প্রতিদিনই পাল্টাচ্ছে নির্বাচনী জরিপের ফলাফল। তবে, রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী রূপে পছন্দের শীর্ষে আছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তার বিকল্প কোন মুখ তুলে ধরতে পারেনি তৃণমূল-বিরোধী দলগুলো।

তীব্র উত্তেজনাকর নির্বাচনী পরিবেশ আর প্রার্থীদের ভোটের দৌড় বেশ উপভোগ করছেন সাধারণ মানুষ ও ভোটাররা। রাজনীতির শীর্ষ মহল বা রূপালি পর্দার তারকাদের পাশে দেখতে পেয়ে খুশি লোকজন। তবে, নির্বাচনের পর এদের দেখা আদৌ পাওয়া যাবে কিনা, সেটাই মানুষের সন্দেহ। মিডিয়াতে এসব আশঙ্কার কথাই জানাচ্ছেন আম জনতা। বলছেন, ‘ভোট শেষে জনগণে এতো কদর আর থাকবে না। প্রার্থীদের দেখাও মিলবে না।’

উন্নয়নশীল দেশগুলোতে নির্বাচন একটি উৎসবে পরিণত হয়, যা এখন পশ্চিমবঙ্গে দৃশ্যমান। উৎসবের পিছু পিছু সংঘাত-সংঘর্ষ এসে পড়ে কখনো কখনো। থাকে জনসংযোগ, প্রচারণা। হালে শুরু হয়েছে সেলফি ক্যাম্পেইন। প্রার্থীরা জনে জনে সেলফি তুলে বন্যার মতো ছড়িয়ে দিচ্ছেন। সবকিছুই করা হচ্ছে নির্বাচনে জয়ের জন্য। তবে সেই মহার্ঘ্য বিজয় শেষপর্যন্ত কে বা কোন দল পাবেন, তা বলার সময় এখনো আসেনি। এজন্য আট দফায় অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচনের পুরো কার্যক্রম শেষে ভোটগণনা পর্যন্ত অপেক্ষা করতেই হবে। সূত্র: বার্তা২৪.কম

এসএসআর/জামালপুর লাইভ

বার্তা সম্পাদক
%d bloggers like this: