Archives

জামালপুর

জামালপুরে জুমের মাধ্যমে ই-পাসপোর্টের উদ্বোধন

জামালপুরে জুমের মাধ্যমে ই-পাসপোর্টের উদ্বোধন

নিজস্ব প্রতিনিধি : ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তরের তত্ত্বাবধানে ই-পাসপোর্ট ও স্বয়ংক্রিয় বর্ডার নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থাপনা শীর্ষক প্রকল্পের আওতাধীন জামালপুরসহ ৯টি জেলায় জুমের মাধ্যমে ই-পাসপোর্টের উদ্বোধন করা হয়েছে।

গত ১৪ অক্টোবর ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তরের প্রধান কার্যালয়, আগারগাঁও ঢাকা থেকে জুমের মাধ্যমে জামালপুরের ই-পাসপোর্ট কার্যক্রমের উদ্বোধন ঘোষণা করেন ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মোহাম্মদ আইয়ূব চৌধুরী, পিবিজিএমএস,এনডিসি,পিএসসি।

মেজর জেনারেল মোহাম্মদ আইয়ূব চৌধুরী জামালপুর আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের উপ-সহকারী পরিচালক নাজমুল আহসান হাবিবকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে জেলাবাসীর যথাযথ পাসপোর্ট সেবা প্রদানের জন্য নির্দেশ প্রদান করেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার দৃঢ় প্রত্যয়ে ই-পাসপোর্টের প্রবর্তন একটি যুগান্তকারী পদক্ষেপ। মুজিববর্ষের শুভ লগ্নে ই-পাসপোর্টের শুভ যাত্রা বাংলাদেশীদের জন্য একটি মহিমান্বিত ঐতিহাসিক অধ্যায়। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার দৃঢ় অঙ্গীকারের অংশ হিসেবে বাংলাদেশে ই-পাসপোর্ট প্রবর্তন করতে পেরে ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তর গর্বিত।

ই-পাসপোর্ট অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ও অধিক সংখ্যক নিরাপত্তা সম্বলিত হওয়ায় বাহকের নিরাপদ ভ্রমন নিশ্চিত করবে। ই-পাসপোর্ট ৫ বছর ও ১০ বছর মেয়াদী হবে। জামালপুর আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের উপ-সহকারী পরিচালক নাজমুল আহসান হাবিব জানান, বহুল প্রতীক্ষিত ইলেকট্রনিক পাসপোর্ট বা ই-পাসপোর্ট পরিষেবা ও স্বয়ংক্রিয় নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থার উদ্বোধন হওয়ায় জামালপুর জেলাবাসী ই-পাসপোর্টের সুফল ভোগ করবে। প্রত্যেক পাসপোর্ট প্রত্যাশিদের ই-পাসপোর্ট অনলাইন ভিত্তিক সকল প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে হবে। ই-পাসপোর্ট উদ্বোধন ঘোষণার পর থেকে জামালপুরের বেশ কয়েকজন গ্রাহক ই-পাসপোর্টের আবেদন করেছেন।

উল্লেখ্য ২০১৮ সালের ১৯ জুলাই ডিআইপি এবং জার্মানি ভেরিডোস জিএমবিএইচ সংস্থা ইলেকট্রনিক পাসপোর্টের জন্য একটি চুক্তি স্বাক্ষর করে। প্রকল্পের তথ্যানুযায়ী বাংলাদেশে ই-পাসপোর্ট এবং স্বয়ংক্রিয় নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থার প্রকল্পটি ৪ হাজার ৫৬৯ কোটি টাকা ব্যয়ে বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। ডিআইপি পুরো প্রকল্পটি সরকারি অর্থায়নের বাস্তবায়ন করছে। ১০ বছরে সরাদেশে মোট ৩০ মিলিয়ন পাসপোর্ট বিতরণ করা হবে।

ই-পাসপোর্ট সেবার সঙ্গে সঙ্গে অনলাইনের মাধ্যমে অভিবাসনের আনুষ্ঠানিকতারও পুরো প্রক্রিয়া শেষ হবে। জার্মানিতে দুই মিলিয়ন ই-পাসপোর্ট তৈরি করা হবে। যাঁরা প্রথমে আবেদন করবেন তাঁদের পাসপোর্ট জার্মানি থেকে তৈরি করা হবে। ই-পাসপোর্টের মেয়াদ হবে ৫ ও ১০ বছরের জন্য।

এস আর /জামালপুর লাইভ

বার্তা সম্পাদক
%d bloggers like this: